ভর্তি জালিয়াতির টাকা নিয়ে ছাত্রলীগ দুগ্রুপের সংঘর্ষ, বহিষ্কার এক

ju

ছাত্রলীগভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির মাধ্যমে উত্তর সরবরাহের টাকা ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে নাইম নামের এককর্মী আহত হয়েছে এবং কানন নামের এক কর্মীকে ছাত্রলীগ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীসূত্রে জানা যায়, টাকা ভাগাভাগি নিয়ে সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ভাস্কর্য চত্ত্বরে ছাত্রলীগের সভাপতি গ্রুপের কর্মী নাইম ও জাকিরের সঙ্গে ছাত্রলীগ কর্মী কাননের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে কানন দেশীয় অস্ত্র হাতে নাইমের দিকে তেড়ে আসে। আত্মরক্ষার্থে দৌড়ে পালানোর সময় কানন পিছন থেকে ছুরি ছুড়ে মারে। এতে জাকির পালাতে সক্ষম হলেও নাইম আহত হন। তাকে সুমনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা যায়, ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষার সময় ফিন্যান্স বিভাগের নবম ব্যাচের শিক্ষার্থী রিমনকে এসএমএস এর মাধ্যমে আর্থিক চুক্তির বিনিময়ে উত্তর পত্র সরবরাহ করেছিল ৮ম ব্যাচের শিক্ষার্থী নাইম ও জাকির।

রিমনের কাছ থেকে চুক্তিকৃত অর্থ না পাওয়ায় নাইম ও জাকির টাকার জন্য তাকে চাপ দেয়। তাদের থেকে বাচার জন্য রিমন ছাত্রলীগ কর্মী একাউন্টিং বিভাগের শিক্ষার্থী কাননের কাছে অভিযোগ করে। এরই প্রেক্ষিতে কানন তার সহকর্মী সোহেল, শেখ রাসেল ও ইব্রাহিমসহ কয়েকজনকে সাথে নিয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটায়।

ঘটনার সময় পুলিশ রিমন ও তার বন্ধু মুশফিককে আটক করেছে বলে ছাত্রলীগের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জুবায়ের আব্দুল্লাহ প্রিন্স জানিয়েছেন। তবে এ ব্যাপারে কোতয়ালি থানার ওসি কিছুই জানেন না বলে জানান।

এ ব্যাপারে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি এফ এম শরীফুল ইসলাম বলেন, সংগঠনের শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে কাননকে ছাত্রলীগ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়াও সোহেল, শেখ রাসেল ও ইব্রাহিমকে কেন বহিষ্কার করা হবে না এ মর্মে নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

এম আই/সাকি