বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স না দেওয়ার দাবি বাফার

  • Emad Buppy
  • April 22, 2014
  • Comments Off on বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স না দেওয়ার দাবি বাফার
bafa

bafaসম্পূর্ণ বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানকে বাংলাদেশে ব্যবসায়িক লাইসেন্স না দেওয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরওয়ার্ড অ্যাসোসিয়েশন (বাফা)। একই সাথে শিপিং ও সিঅ্যান্ড এফ এজেন্ট ব্যবসার ক্ষেত্রে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানকে কেন্দ্রীয়ভাবে মূল্য সংযোজন কর নিবন্ধনের ব্যবস্থা করাসহ বেশ কিছু  দাবি জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সম্মেলন কক্ষে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে এনবিআরের প্রাক-বাজেট আলোচনায় এ দাবি জানান তারা। এ সময় এনবিআরের বিভিন্ন বিভাগের সদস্য, সচিব ও কয়েকটি সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এনবিআরের শুল্ক নীতির সদস্য ফরিদ উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনায় সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট, শিপিং ও ফ্রেইড ফরওয়ার্ড সংক্রান্ত ৬টি সংগঠন অংশ নেয়।

আলোচনায় বাংলাদেশ ফেইড ফরওয়ার্ড অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিরা বলেন, দেশীয় প্রতিষ্ঠানকে রক্ষা সম্পূর্ণ বিদেশি মালিকাধীন কোনো প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স দেওয়া উচিত নয়। সেক্ষেত্রে তারা যদি দেশীয় কোম্পানির ৫১ শতাংশ ও নিজের ৪৯ শতাংশ বিনিয়োগে ব্যবসা  করে তাহলে তাদের লাইসেন্স  দেওয়া যেতে পারে।                        

সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট এবং স্টেক হোল্ডার ও শিপিং এজেন্ট এর ক্ষেত্রে লাইসেন্সের মেয়াদ চার বছর পর্যন্ত রাখার দাবি জানান তারা। বর্তমানে এটি দুই বছরের জন্য নির্ধারিত আছে। লাইসেন্স প্রদানের ক্ষেত্রে সরকারের সঞ্চয়ী স্কিমকে সহায়তার জন্য নগদায়ন সহজ ও বারবার নবায়নের বিধান প্রত্যাহারেরও দাবি করেন তারা।

এছাড়া, কেন্দ্রীয়ভাবে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) নিবন্ধন করার ব্যবস্থার দাবি জানিয়ে তারা জানান, সিঅ্যান্ডএফ, শিপিং এজেন্টদের কাস্টমস স্টেশন থেকে বারবার মূসক প্রদান করা হয়রানির শামিল। তাই কেন্দ্রীয়ভাবে মূসক প্রদানের ব্যবস্থা করলে হয়রানি থেকে মুক্ত হওয়া যাবে।

এছাড়া এ ব্যবসায় স্বচ্ছতার জন্য এর সাথে সংশ্লিষ্ট কোনো প্রতিষ্ঠোনের বাফা’র সদস্যপদ না থাকলে লাইসেন্স বাতিলের দাবি জানান তারা।

সংগঠনগুলোর দাবির জবাবে এনবিআরের শুল্কনীতির সদস্য ফরিদ উদ্দিন বলেন, ব্যবসায়ীরা শুধু কর কমানোর কথা বলেন। রাজস্ব আয় বৃদ্ধির বিষয়ে তাদের কোনো মাথা ব্যথা নেই।  এ ক্ষেত্রে শুধু নিজেদের কথা বিবেচনা করলেই হবে না। সবাইকে সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধির দিকে দৃষ্টি দিতে হবে।

এইউ নয়ন/এআর