দিনাজপুরের বিরল স্থলবন্দরটি আজও আশার আলো দেখেনি

  • Emad Buppy
  • May 16, 2014
  • Comments Off on দিনাজপুরের বিরল স্থলবন্দরটি আজও আশার আলো দেখেনি
বিরল স্থলবন্দর
বিরল  স্থলবন্দর
বিরল স্থলবন্দর

স্বাধীনতার পর দেশের অন্য স্থলবন্দরগুলো পূর্ণতা লাভ করলেও দিনাজপুরের বিরল স্থলবন্দরটি এখনো আশার আলো দেখতে পারেনি।

উপজেলা শহর থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার পশ্চিমে ৬নং ভাণ্ডার ইউনিয়নের কিশোরগঞ্জ সীমান্ত ফাড়ির পাশে চক শংকর মৌজার ২৫ একর জমি অধিগ্রহণ নিয়ে এই স্থলবন্দরটি স্থাপিত হয়।

৫ বছর পূর্বে এই স্থলবন্দরটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হলেও বিভিন্ন জটিলতার কারণে আজও শুরু হয়নি এর কার্যক্রম।

ইতোমধ্যে ভারত সরকার পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর হিসেবে চালুর প্রস্তাব গ্রহণ করে রাধিকাপুরের মিটার গ্রেজ থেকে ব্রোডগ্রেজ লাইন ৭ বছর পূর্বে সংস্কার করেছে। স্থানীয় বিভিন্ন রাজনৈতিক, পেশাজীবী সংগঠনসহ সাধারণ মানুষ উক্ত স্থলবন্দরটি চালু করার দাবিতে দীর্ঘদিন থেকে আন্দোলন চালিয়ে আসছে।

এদিকে, স্থলবন্দর চালুর আশায় ২০০৫ সাল থেকে ভারতের রাধিকাপুর থেকে রেল চলাচল বন্ধ রয়েছে। শুল্ক বাণিজ্য বন্ধ থাকায় সরকার ৭ বছরে প্রায় ৪০ কোটি টাকার রাজস্ব হারিয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, বিরল স্থলবন্দরটি চালু করা হলে স্থানীয় এলাকায় দারিদ্র্যের হার কমে আসবে। বৃহত্তর দিনাজপুরের মানুষ খুব সহজেই ভারত গমন করতে পারবে। সেই সাথে জেলার অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বৃদ্ধি পাবে।

বিরল উপজেলা তথা দিনাজপুরবাসী জানান, বিরল স্থলবন্দরটি চালু না হওয়ায় সরকার যেমন মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে, ঠিক তেমনি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের সাথে জড়িত ব্যবসায়ীরা। তাই বর্তমান সরকারের আমলেই বিরল স্থলবন্দরটি চালু হবে এমন প্রত্যাশা করছের তারা।

কেএফ