“মহাসড়ক নয়, গ্রামীণ সড়ক নির্মাণে বাজেট বরাদ্দ দেবে সরকার”

  • Emad Buppy
  • May 15, 2014
  • Comments Off on “মহাসড়ক নয়, গ্রামীণ সড়ক নির্মাণে বাজেট বরাদ্দ দেবে সরকার”
আবুল মাল আব্দুল মুহিত
আবুল মাল আব্দুল মুহিত
পরিকল্পনা কমিশনে প্রাক বাজেট সেমিনারে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, মহাসড়ক নয় বরং গ্রামীণ জনপদের রাস্তা-ঘাট নির্মাণে এবারের বাজেটে বরাদ্দ দেওয়া হবে। বৃহস্পতিবার জাতীয় পরিকল্পনা কমিশনে প্রাক-বাজেট সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যেসব মহাসড়ক নির্মাণ করা হয়েছে তা যথেষ্ট। এখন প্রয়োজন এগুলোর সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ। তাই আগামি বাজেটে মহাসড়ক নির্মাণে নতুন কোনো বরাদ্দ দেওয়া হবে না। এর পরিবর্তে গ্রামীণ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য নতুন রাস্তাঘাট নির্মাণ ও পুনঃসংস্কারে বরাদ্দ দেওয়া হবে’।

বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ-এমন মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, ‘এখন আর কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) প্রকল্পের কোনো প্রয়োজনীয়তা নেই। তাই এটা সম্পূর্ণভাবে বাতিল করা হবে। কাজের বিনিময়ে টাকা দেবে সরকার’।

এছাড়া নির্বাচনী এলাকাভিত্তিক বাজেট বরাদ্দ দেওয়ার কথাও বলেন মন্ত্রী।

সেমিনারে বিভিন্ন এলাকার নির্বাচিত ও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্যরা বক্তব্য রাখেন। তারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দ্রুত এমপিও সুবিধা দেওয়ার দাবি জানান। তবে এসব দাবির প্রতিউত্তরে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এমপিও পদ্ধতি কার্যত কোনো সঠিক পদ্ধতি নয়। তাই এটা বাতির করা উচিৎ’। এমপিওর পরিবর্তে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানভিত্তিক সরকারি অনুদান বাড়ানোর কথা বলেন তিনি।

সংসদ সদস্য ছাড়াও সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিয়ার রহমান ও রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজি বলেন, ‘পদ্মা সেতু না হওয়ার কারণে বিগত সরকারের ভাবমূর্তি অনেকাংশে ক্ষুন্ন হয়েছে। তাই এবারের বাজেটে পদ্মা সেতুকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। এছাড়া অবকাঠামোগত উন্নয়নে নির্ধারিত প্রয়োজনের অনেক বেশি বরাদ্দ দেওয়া হলেও কাজ হয় অনেক কম। ঠিকাদার ও স্থানীয় নেতাদের পকেটে এসব টাকা চলে যায়’। তিনি দুর্বৃত্তায়নের রাজনীতি বন্ধ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

সেমিনারে পল্লী বিদ্যুতের পুনর্গঠন, রাজস্ব আয় বৃদ্ধির জন্য টাস্কফোর্স গঠন, মানবসম্পদ উন্নয়নের লক্ষ্যে শিক্ষা ব্যবস্থার পরিবর্তন এবং শিক্ষাভিত্তিক কর্মক্ষেত্র তৈরি, নদী ভাঙ্গন, স্বাস্থ্য সেবার মানোন্নয়ন, উত্তরবঙ্গে গ্যাস সংযোগ চালু করা ইত্যাদি বিষয়ের ওপর জোর দিতে অর্থমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান সংসদ সদস্যরা।

সমাজে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি ও নারীর ক্ষমতায়নের ওপর গুরুত্ব তুলে ধরেন সংরক্ষিত আসনের নারী সংসদ সদস্যরা। কর্মক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধির জন্য প্রতিটি উপজেলায় প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণের কথা বলেন তারা। এছাড়া নারী নির্যাতন প্রতিরোধ, উপবৃত্তির পরিমাণ বৃদ্ধি, নার্সিং ইনস্টিটিউট স্থাপনের কথা বলেন নারী সংসদ সদস্যরা।

এসএসআর