পার্বতীপুরে স্ত্রীর হাতে স্বামী খুন

খুন
খুন
খুনের প্রতীকী চিহ্ন

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে সুবাস চন্দ্র (৪৮) নামে এক মুড়ি বিক্রেতা দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী ও সন্তানদের হাতে নিহত হয়েছেন। নিহত সুবাস পার্বতীপুর উপজেলার হাবড়া ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত হরিপদ রায়ের ছেলে।

গত বুধবার পার্বতীপুর মডেল থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দ্বিতীয় স্ত্রী জোসনা বালা সহ ৫ জনকে আটক করেছে।

এলাকাবাসি সূত্রে জানা যায়, নিহত সুবাস চন্দ্র রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত গনপতির বিধবা স্ত্রী জোসনা বালাকে ৮ বছর আগে দ্বিতীয় বিয়ে করে (হিন্দু ধর্মে বিধবা বিয়ে না হওয়ায় মালা বদল করে)। সুবাস চন্দ্রের প্রথম পক্ষের স্ত্রী ও চার মেয়ে এবং জোসনা বালার প্রথম পক্ষের তিন ছেলে থাকায় বিয়ের কিছুদিনের মধ্যে তাদের মাঝে পারিবারিক কলহ শুরু হয়। এক পর্যায় পারিবারিক কলহ চরম আকার ধারণ করে। এ কারণে জোসনা বালা আগের স্বামীর সন্তানদের নিয়ে একই গ্রামে আলাদা বসবাস শুরু করে। কিন্তু পাশাপাশি বাড়ি হওয়ায় প্রায় সুবাসের সাথে জোসনা বালা ও সুবাস চন্দ্রের ঝগড়া লেগেই থাকতো।

গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সুবাস চন্দ্র বাড়ির সামনে এসে জোসনাকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ শুরু করে। এ সময় জোসনা বালা, তার ছেলে নিতেষ ও প্রদিপ এসে সুবাসকে বেদম মারপিট করলে ঘটনা স্থলেই সে নিহত হয়। হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামবাসিরা জোসনা বালা, ছেলে প্রদিপ চন্দ্র, পুত্রবধূ সন্ধ্যা রানী, দেবর (আগের স্বামীর ভাই) নিবেশ চন্দ্র ও নিবেশ চন্দ্রের স্ত্রী প্রতিমা রানীকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়।

পরে সকাল ৭টার দিকে পার্বতীপুর মডেল থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে এবং আটককৃতদের থানায় নিয়ে আসে। এ ব্যাপারে পার্বতীপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সাকি/