টাকা আত্মসাতে ব্র্যাক ব্যাংকের চার কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ

  • Emad Buppy
  • May 15, 2014
  • Comments Off on টাকা আত্মসাতে ব্র্যাক ব্যাংকের চার কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ
Brack Bank & Dudok
Brack Bank & Dudok
ফাইল ফটো: ব্র্যাক ব্যাংক ও দুদক

চেক জালিয়াতির মাধ্যমে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ব্র্যাক ব্যাংক গুলশান শাখার চার কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তাদের বিরুদ্ধে এসিআই সল্ট লিমিটেডের অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় ১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বলে নিশ্চিত করে দুদক সূত্র। কমিশনের সহকারি পরিচালক মশিউর রহমান সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত তাদের এ জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

দুদক সূত্র জানায়, ব্র্যাক ব্যাংকের গুলশান শাখার চার কর্মকর্তা উর্মি ফ্যাশন নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ভিন্ন একটি হিসেব থেকে প্রায় দেড় কোটি টাকা আত্মসাতে সহায়তা করে। আর এ অভিযোগটির অনুসন্ধানে যেসব কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে তারা হলেন- ব্রাক ব্যাংক লিমিটেড গুলশান শাখার কাস্টমার রিলেশন অফিসার মো. আরিফুজ্জামান, ব্রাঞ্চ সেলস ও সার্ভিস অফিসার লায়লা দারাজ, ব্রাঞ্চ কাস্টমার সার্ভিস ম্যানেজার মোশারাত পারভীন ও অ্যাসোসিয়েট রিলেশনশিপ ম্যানেজার এস এম সাইফুল ইসলাম।

তবে ব্রাক ব্যাংকের গুলশান শাখার কাস্টমার রিলেশন অফিসার মো. নাজমুল হককে তলব করা হলেও সে ব্রাক ব্যাংকের চাকুরিতে না থাকায় এবং বর্তমানে চট্টগ্রামে অবস্থান করায় চিঠি দিয়ে অবহিত করেছেন কমিশনকে।

এর আগে গত রোববার ওই পাঁচ কর্মকর্তাকে তলব করে নোটিশ পাঠায় দুদক।নোটিশে বৃহস্পতিবার সকালে দুদকে হাজির হতে বলা হয়।

জানা যায়, সম্প্রতি বাংলদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের বিশেষ পরিদর্শন প্রতিবেদনে এই জালিয়াতির বিষয়টি অনুসন্ধানের জন্য নথি পাঠায় দুদক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ পরিদর্শন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্র্যাক ব্যাংকের গুলশান শাখার কর্মকর্তারা তাদের   গ্রাহক ’উর্মি ফ্যাশন গ্যালারীর (হিসাব নং-১৫০১ ২০২০ ৮৮২১ ৩০০১) পক্ষে ৪টি চেক জালিয়াতি করে। ব্র্যাক ব্যাংকের কর্মকর্তারা জালিয়াতি ও প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে এইচএসবি ব্যাংকের গ্রাহক ‘এসিআই সল্ট লিমিটেডের ’ (হিসাব নং-০০১ ১৪২৩৪৮ ০১১) এর ৪টি চেক নং-০৩৫৪২৯৭,তাং-০৩/০৬/২০১৩,টাকার পরিমান ৪৮ লাখ ৬৫ হাজার ৫০ টাকা, চেক নং-০৩৫৪২৯৮,তাং-২৭/৫/২০১৩ টাকার পরিমান ২৫ লাখ ৫৯ হাজার ৫০ টাকা, চেক নং-০৩৫৪২৯৯ তাং-০২/০৬/২০১৩ টাকার পরিমান ১৮ লাখ ৫৯ হাজার ৫০ টাকা ,চেক নং-০৩৫৪৩০০ তাং-০৫/০৬/২০১৩ টাকার পরিমান ৫৪ লাখ ২৫ হাজার ৫০ টাকা সরিয়ে নিতে সহায়তা করেন।

অর্থাৎ মোট ১ কোটি ৪৬ লাক ৯৮ হাজার ২ শত টাকা জালিয়াতির মাধ্যমে এসিআই সল্টের এ্যাকাউন্ট থেকে কেটে নিয়ে উর্মি ফ্যাশন গ্যালারির একাউন্টে জমা দেখিয়েছে। পরে ওই ৪টি নকল চেক সৃজন করেন এবং ব্র্যাক ব্যাংকে ডিজিটাল (ইউবিএ) মেশিনের মাধ্যমে পরীক্ষায় সঠিক ঘোষণা দিয়ে টাকা উত্তোলনের সুযোগ করে দেন।

বাংলদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের বিশেষ পরিদর্শন প্রতিবেদনটি নিয়ে কাজ করছে দুদক। ইতোমধ্যে দুদক কর্তৃপক্ষ ওই চেক জালিয়াতি চক্রের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ মানিলন্ডারিং আইন ২০১২ এর ১৪ ধারায় ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতকে এই বিষয়টি অবহিত করেছেন। আদালত গত ১১মে এক আদেশে অভিযুক্ত ব্যাক্তিদের ব্যাংক হিসাব অবরুদ্ধ করতে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছে। ফলে ৫৫ লাখ ৩১ হাজার ৮৪৬ টাকা আর উত্তোলন করতে পারছে না বলে জানা যায়।