রমজানের আগেই পণ্যমূল্যে ঊর্ধ্বগতি

  • Emad Buppy
  • May 13, 2014
  • Comments Off on রমজানের আগেই পণ্যমূল্যে ঊর্ধ্বগতি
rayer bazar
কাঁচাবাজার
কাঁচাবাজার

রমজান আসার আগেই বাড়তে শুরু করেছে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য। এক সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে সবজি, মাছ, মাংস ও রসুনের দাম ৫ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, মুনাফালোভী আড়তদাররা বেশি লাভের আশায় পণ্য মজুদ করে রাখার কারণে বাজারে দ্রব্যের মূল্য বাড়ছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর শান্তিনগর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি পণ্যই বাড়তি দামে বিক্রি করছেন দোকানিরা। এক সপ্তাহ আগে বাজারে প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ ৫০ টাকায় বিক্রি হলেও আজকে বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়। এদিকে, প্রতি কেজি গাজর ১৫ টাকা বেড়ে ৫৫ টাকায়, উস্তা ১০ টাকা বেড়ে ৪০ টাকায়, কচুর লতি ১০ টাকা বেড়ে ৪০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

এছাড়াও একদানা রসুন ২০ টাকা বেড়ে ১৫০ টাকায়, গরুর মাংস ২০ টাকা বেড়ে ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বাজারে।

এদিকে, ইলিশের দামও কেজিতে ১০০ থেকে ২০০ টাকা বেড়ে ১ হাজার ১০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তাছাড়া বাজারের অধিকাংশ দোকানেই নেই সিটি কর্পোরেশন নির্ধারিত মূল্য তালিকা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিক্রেতারা দায়সারাভাবে বলেন, ‘প্রতিদিনই মূল্য তালিকা টানানো হয় শুধু আজকেই হয়নি’।

আজকের বাজার চিত্র:

সবজি:

শান্তিনগর বাজারে প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ ৭০ টাকায়, লম্বা বেগুন ৩০ টাকায়, গোল বেগুন ৩৫ টাকায়, ঝিঙ্গা ৪০ টাকায়, চিচিঙ্গা ৩০ টাকায়, আলু ১৮ টাকায়, গাজর ৫৫ টাকায়, করলা ৩০ টাকায়, উস্তা ৩৫ টাকায়, ঢেঁড়স ৪০ টাকায়, পটল ৪০ টাকায়, কাঁচা পেঁপে ৪০ টাকায় ও শসা ৩৫ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তাছাড়া প্রতি কেজি কচুর লতি ৫০ টাকায়, বরবটি ৪০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়া (বড়) ৬০ থেকে ৭০ টাকায়, লাউ ৪০ টাকায়, জালি কুমড়া ২০ টাকায়, কাঁচা কলা প্রতি হালি ২৫ টাকায়, লেবু ৩০ টাকায়, কাঁকরল ৫০ টাকায় ও কাঁচা আম ৪০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে বাজারে।

এদিকে, প্রতি কেজি টমেটো ৪৫ টাকায়, ফুল কপি প্রতি পিস ৪০ টাকায়, বাঁধা কপি ৫০ টাকায়, মুলা ৪০ টাকায়, সাজনা ৪০ থেকে ৪৫ টাকায়, লালশাক প্রতি আটি ১০ টাকায়, ডাটাশাক ১৫ টাকায়, পুঁইশাক ১৫ টাকায়, লেটুস পাতা প্রতি পিস ৫ থেকে ১০ টাকায়, ধনে পাতা (১০০ গ্রাম) ২০ টাকায় ও পুদিনা পাতা আটি প্রতি ১০ টাকা করে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা।

মুদি:

মুদি দোকানগুলোতে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৩৪ টাকা, ইন্ডিয়ান পেঁয়াজ ২৮ টাকা, শুকনা মরিচ ১৬০ টাকা, চায়না রসুন ৮০ টাকা, দেশি রসুন ৭০ টাকা, একদানা রসুন ১৫০ টাকা, চায়না আদা ২৫০ টাকা, অন্যান্য আদা ২০০ টাকা, প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল ১১০ টাকা ও বোতলজাত সয়াবিন তেল ১১৩ থেকে ১১৭ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে বাজারে।

এছাড়াও প্রতি কেজি দেশি মসুর ডাল ১০০ টাকা, ইন্ডিয়ান মসুর ডাল ৭৫ টাকা, দেশি মুগ ডাল ১২৫ টাকা, আস্ত ছোলার ডাল ৬০ টাকা, ভাঙ্গা ছোলার ডাল ৫০ টাকা, খোলা চিনি ৪৫ টাকা ও পেকেটজাত চিনি ৪৯ থেকে ৫২ টাকা করে পাওয়া যাচ্ছে বাজারে।

চাল:

বাজারে প্রতি কেজি পুরাতন নাজির শাইল চাল ৫০ থেকে ৫২ টাকা, নতুন নাজির শাইল চাল ৪৮ থেকে ৫০ টাকা, পুরাতন মিনিকেট ৫২ থেকে ৫৪ টাকা, নতুন মিনিকেট ৪৮ থেকে ৫০ টাকা, নতুন লতা আটাশ চাল ৪০ থেকে ৪২ টাকা, পুরাতন লতা আটাশ ৪৪ টাকা, মোটা চাল ৩৬ টাকা, পাইজাম ৪০ থেকে ৪২ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া পারিজা ৩৬ টাকা, জিরা নাজির ৫০ থেকে ৫২ টাকা, চিনি গুড়া ৮৫ থেকে ৯০ টাকা, বি আরআটাশ ৪০ থেকে ৪২ টাকা, বি আর উনত্রিশ ৪২ টাকা, হাসকি ৪২ টাকা, স্বর্ণা ৩৬ টাকা ও লাল বিরই ৪৫ থেকে ৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে বাজারে।

ডিম:

বাজারে প্রতি হালি ফার্মের মুরগির লাল ও সাদা ডিম ২৮ টাকায়, দেশি মুরগির ডিম ৪০ টাকায়, পাকিস্তানি মুরগির ডিম ৩৮ টাকা ও হাসের ডিম ৩২ টাকা করে বিক্রি করছেন দোকানিরা।

মাছ :

শান্তিনগর বাজারে এক কেজি ওজনের প্রতিটি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১১০০ থেকে ১২০০ টাকায়, দেশি কাতল মাছ ৩৮০ থেকে ৪০০ টাকায়, বড় রুই মাছ প্রতি কেজি ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকায়, তেলাপিয়া ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায়, চায়না পুটি ২০০ থেকে ২২০ টাকায়, পাঙ্গাস ১০০ থেকে ১২০ টাকায়, বড় চিংড়ি ৮০০ থেকে ৯০০ টাকায়, চাষের কৈ ২৪০ থেকে ২৬০ টাকায়, সিলভার কার্প ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায়, দেশি জাতের শিং মাছ ৫০০ থেকে ৬০০ টাকায়, নলা মাছ ১৮০ টাকায়, কার্ফু মাছ ২০০ থেকে ২২০ টাকায়, চাপিলা মাছ ২০০ টাকায় ও জাটকা ১৮০ থেকে ২২০ টাকা কেজিতে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।

মাংস :

বাজারে প্রতি কেজি গরুর মাংস ৩০০ টাকায়, খাসির মাংস ৪৫০ টাকায়, ভেড়া ও ছাগীর মাংস ৪০০ টাকায়, দেশি মুরগি ৩৮০ থেকে ৪০০ টাকায়, ব্রয়লার মুরগি ১৪০ টাকায়, লেয়ার মুরগি ১৫০ টাকায়, পাকিস্তানি মুরগি ২৫০ টাকায়, হাঁস ৩০০ টাকায় ও প্রতি জোড়া কবুতরের বাচ্চা ২০০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে বাজারে।

এমআরএস /এআর