বাজেটের আগে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বসতে চায় ডিএসই

আবুল মাল আবদুল মুহিত
আবুল মাল আবদুল মুহিত
আবুল মাল আবদুল মুহিত

আগামি অর্থবছরের (২০১৫-১৫) বাজেটকে সামনে রেখে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সঙ্গে দেখা করতে চায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালনা পর্ষদ। বৈঠকে পুঁজিবাজারের বর্তমান অবস্থা এবং বাজেটের জন্য নিজেদের মতামত ও সুপারিশ তুলে ধরবে দেশের বৃহত্তম এ স্টক এক্সচেঞ্জ।

অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত পেতে ডিএসই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সহযোগিতা চেয়েছে। রোববার এ বিষয়ে বিএসইসিকে চিঠি দিয়েছে ডিএসই। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, এটি হবে ডিএসই ব্যবস্থাপনা থেকে মালিকানা পৃথক (ডিমিউচ্যুয়ালাইজড) স্টক এক্সচেঞ্জের নতুন পর্ষদের প্রথম সাক্ষাৎ। এ সাক্ষাতের মাধ্যমে বাজারের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে অর্থমন্ত্রীকে অবহিত করতে চায় ডিএসই পরিচালনা পর্ষদ। বিশেষ করে আগামি বাজেটে যাতে পুঁজিবাজারের উন্নয়নের জন্য যাকে কোনো ধরনের প্রণোদনা থাকে বিষয়টি প্রাধান্য পাবে।

ডিএসই’র বাজেট প্রস্তাব:

বাজেটকে সামনে রেখে বেশ কিছু প্রস্তাব দিয়েছে ডিএসই। প্রস্তাবনায় পুঁজিবাজারের কর রেয়াতের পরিমাণ ১০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ হাজার টাকা করার কথা বলা হয়েছে। এর যুক্তি হিসেবে বলা হয়েছে, পুঁজিবাজারে মন্দার কারণে বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত। অনেকের আয় করযোগ্য সীমার নিচে থাকার পরও উৎসে কর কাটা হচ্ছে। তাই বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে কর রেয়াত সুবিধা বাড়ানো প্রয়োজন।

ডিএসই লভ্যাংশের উপর থেকে উৎসে আয় কর প্রত্যাহারের প্রস্তাব দিয়েছে। এ বিষয়ে বলা হয়েছে, এই করের ফলে দ্বৈত করের জটিলতা তৈরি হয়েছে। তালিকাভুক্ত কোম্পানি একবার তার আয়ের উপর কর দিচ্ছে। আবার একই আয়ের ভিত্তিতে ঘোষিত লভ্যাংশে কর দিতে হচ্ছে। এটি অযৌক্তিক। এই কর প্রত্যাহার করা হলে কোম্পানি লভ্যাংশ দেওয়ার সক্ষমতা বাড়বে।

প্রস্তাবে করপোরেট আয়ে রেয়াত সুবিধা পুনর্বিন্যাসের কথা বলা হয়। বর্তমানে ২০ শতাংশের বেশি লভ্যাংশ দিলে সংশ্লিষ্ট কোম্পানি তার আয়ের উপর ১০ শতাংশ কর রেয়াত পায়। স্টক এক্সচেঞ্জ প্রস্তাব দিয়েছে ২০ শতাংশের বেশি কিন্তু ২৫ শতাংশের কম লভ্যাংশের ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ এবং ২৫ শতাংশের বেশি লভ্যাংশের ক্ষেত্র ১৫ শতাংশ কর রেয়াত দেওয়ার।

বর্তমানে মূলধনী মুনাফার ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদেরকে ১০ শতাংশ হারে কর দিতে হয়। ডিএসই প্রস্তাব দিয়েছে এটিকে বিভিন্ন মেয়াদের সঙ্গে সম্পৃক্ত করে কর হার নির্ধারণের। এক থেকে দুই বছর পর্যন্ত শেয়ার ধারণ করলে সাড়ে ৭ শতাংশ হারে, ২ থেকে ৩ বছর পর্যন্ত ধারণ করলে ৫ শতাংশ এবং ৩ বছরের বেশি ধারণ করলে শূণ্য শতাংশ কর আরোপের প্রস্তাব দিয়েছে।

অর্থসূচক/জিইউ/