ব্রাহ্মণবাড়িয়া টেক্সটাইল মিলের কোটি টাকার যন্ত্রপাতি লুট

brahmanbaria

রাতের আঁধারে পুলিশ পাহারায় সরিয়ে নেওয়া হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মেড্ডা এলাকায় অবস্থিত কোকিল টেক্সটাইল মিলের ভারী যন্ত্রপাতি। খবর পেয়ে এলাকাবাসী বাধা দিলেও সফল হয়নি তারা। মালামাল সরিয়ে নেওয়ার কারণ জানায়নি মিল কর্তৃপক্ষ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানচিত্র

গত মঙ্গলবার রাতে মিল কর্তৃপক্ষ পুলিশ পাহারায় মালামালগুলো নিয়ে যায়।

মিলের ভেতরের সকল ভারি যন্ত্রপাতি ট্রাকে তোলা হচ্ছে এই খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন এসে বাধা দেয়। তবে এ সময় কারখানার ভেতরে পুলিশ থাকায় এলাকাবাসী কিছু করতে পারেনি।

কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানায়, কারখানার বিভিন্ন ফ্লোরে ঢালাই করে বসানো ভারী যন্ত্রপাতি শাবল দিয়ে ভেঙে রাতের অন্ধকারে ট্রাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। স্থানীয়রা এ সময় বাধা দিলেও উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তাদের তৎপরতায় তারা বাধা সরিয়ে নিতে বাধ্য হন। এসব মালামাল কি উদ্দেশ্যে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে তারও কোনো জবাব পাননি তারা।

কোকিল টেস্কটাইল মিলের সাবেক শ্রমিক নেতা নিজাম উদ্দিন জানান, ১৯৬৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মেড্ডা এলাকায় ১১ দশমিক ৮ একর জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠিত এই মিলটি অব্যাহত লোকসানের মুখে ১৯৯৮ সালে বন্ধ হয়ে যায়। এরপর বিগত ৪ দলীয় জোট সরকারের সময় মিলটি বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া হয়। কিন্তু দীর্ঘ সময়েও মিলটি চালু করা সম্ভব হয়নি।

মিলের ম্যানেজার কফিল উদ্দিন জানিয়েছেন, মিলটি চালু করতেই পুরাতন যন্ত্রপাতি বিক্রি করে দিয়ে নতুন যন্ত্রপাতি আনা হচ্ছে।

স্থানীয় সংসদ সদস্য আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী মিলটি চালুর আহবান জানিয়ে বলেন, কোকিলের সম্পদ লুট হয়ে থাকলে তিনি এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন জানিয়েছেন, মিলটি চালুর ব্যাপারে এখন থেকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদারকি করা হবে।

সাকি/