শুধু ঋণ নয়, দারিদ্র্য বিমোচনে প্রশিক্ষণও দরকার: সমাজকল্যাণমন্ত্রী

  • Emad Buppy
  • May 3, 2014
  • Comments Off on শুধু ঋণ নয়, দারিদ্র্য বিমোচনে প্রশিক্ষণও দরকার: সমাজকল্যাণমন্ত্রী
mohosin ali

mohosin aliশুধু ক্ষুদ্র ঋণে দারিদ্র্য দূর করা সম্ভব নয়। তার জন্য দরিদ্র ব্যক্তিদের পর্যাপ্ত ঋণ দিতে হবে। তার আগে দিতে হবে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ। তা না হলে ঋণগ্রহীতারা ওই অর্থ সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারবেন না। ঋণ তখন দায়ে পরিণত হবে বলেছেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী।

শনিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ভবনে পিকেএসএফ ও কৃষিশ্রমিক অধিকার মঞ্চ আয়োজিত ‘অতি দরিদ্রদের অবস্থা ও উত্তরণের পথ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, দারিদ্র্য বিমোচনে প্রত্যেক দরিদ্র পরিবারকে অন্তত ১’শ ডলার ঋণ দেওয়া দরকার। কারণ এর চেয়ে কম অর্থে ভালো কোনো ব্যবসায়িক উদ্যোগ নেওয়া সম্ভব নয়।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী দারিদ্র বিমোচনে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, চা শ্রমিকদের শিক্ষার জন্য সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে। চা বাগানের শ্রমিকদের শিক্ষার জন্য ৪৫ ডেসিমেল জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আগামি বাজেটে আলোচনা করে তাদের জন্য আরও জায়গা দেওয়া হবে।

পিকেএসএফ’র সভাপতি ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, পিকেএসএফ দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। কিন্তু কিছু সময় পার হওয়ার পর এটি তার নির্দিষ্ট পথ ছিটকে পড়ে। এটি ক্ষুদ্র ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। কিন্তু পিকেএসএফ শুধু ক্ষুদ্র ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠান নয়, এটি একটি উন্নয়ন সংস্থাও।

তিনি আরও বলেন, আমাদের লক্ষ্য ২০৩০ সালের মধ্যে অতি দারিদ্র্যতা নির্মূল করা। এ লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য অতি দরিদ্র গোষ্ঠির ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে তাদের দারিদ্র বিমোচনে কাজ করতে হবে। এই জন্য শুধু সরকার নয়, সকল শ্রেণি-পেশার লোকজনকেও এগিয়ে আসতে হবে। বর্তমানে পিকেএসএফ ১ কোটিরও বেশি পরিবারকে টেকসই কর্মসংস্থান, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে বলে জানান তিনি।

পিকেএসএফ’র সভাপতি ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, পিকেএসএফ’র উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ফজলুল কাদের ও ড. জসীম উদ্দিন প্রমুখ।

জেইউ