জবি ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, বহিষ্কার ১

ju

ছাত্রলীগজহন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) উল্কা-২ বাসে বসাকে কেন্দ্র করে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের কর্মীদের সঙ্গে হারুন গ্রুপের কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনার জের ধরে সোমবার ক্যাম্পাসে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আনিসুল তালুকদার শিশিরকে সংগঠন থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়াও দুই সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর রহমান খান ও জহির রায়হান আগুনকে শোকজ করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, ২৪ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের উল্কা-২ বাসে বসাকে কেন্দ্র করে শিশির গ্রুপের কর্মীদের সঙ্গে হারুন গ্রুপের কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এর জের ধরে সোমবার দুপুরে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শিশিরের উপস্থিতিতেই তরিকুল, রুবেল, নিউটন, রিমন, সাব্বির ও তোষণসহ তার ১০-১২ জন কর্মী হারুন গ্রুপের কর্মী রাসেল ও শাহরিয়ারকে মারধর করে। মারধরের খবর শুনে ছাত্রলীগের দুই সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর রহমান খান, জহির রায়হান আগুন ও উপ-প্রচার সম্পাদক আনিসুল তালুকদার শিশিরের নেতৃত্বে শতাধিক ছাত্রলীগ কর্মী সাধারণ সম্পাদকের সমর্থকদের ধাওয়া দেয়। পরে ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মহিউদ্দীনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এম আই শিশির বলেন, তরিকুল ও রুবেল আমার গ্রুপের কর্মী নয়। ওরা ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কৃত।

এদিকে ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ বলেন, ছাত্রলীগ থেকে আজীবন বহিষ্কৃত কর্মীরা ক্যাম্পাসে বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইলে আমার কর্মীরা তাদের ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শরীফুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় একজনকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়াও দুই সাংগঠনিক সম্পাদককে শোকজ করা হয়েছে। কিন্তু তরিকুল ও রুবেল ছাত্রলীগ থেকে আজীবন বহিষ্কৃত। ফলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার কিছু নেই। আশা করছি, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. অশোক কুমার সাহা বলেন, আহতদের লিখিত অভিযোগ উপাচার্য দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এম আই/সাকি