পুঁজিবাজারে মিশ্রাবস্থা

DSE-CSEদেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে সূচক ও লেনদেনে মিশ্র অবস্থা বিরাজ করছে। রোববার উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে সব সূচকের ঊর্ধ্বমুখী ধারা দিয়ে লেনদেন শুরু হয়। তবে তা বেশিক্ষণ টিকে থাকে নি। বেলা ১২ টায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক বাদে অন্য দুই সূচক কমে যায়। দিনের শেষে একই চিত্র পরিলক্ষিত হয় এই দিন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)’র প্রধান সূচক বেড়েছে। তবে ডিএস৩০ এবং শরীয়াহ সূচক কমেছে। আগের দিনের চেয়ে লেনদেনের পরিমাণও কমেছে ডিএসইতে। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও একই চিত্র দেখা যায়।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, দিন শেষে শরীয়াহ বা ডিএসইএস সূচক কমেছে দশমিক ৬০ পয়েন্ট। এই সূচক অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৪ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৬৯৮ পয়েন্টে।

অপরদিকে ডিএসইএক্স বা প্রধান সূচক বেড়েছে ১৭ পয়েন্ট। এই দিন এই সূচক অবস্থান করছে ৪ হাজার ৬১৬ পয়েন্টে।

রোববার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) আগের দিনের চেয়ে শেয়ার লেনদেনের পরিমাণ কমেছে ৪৪ কোটি ৯৩ লাখ টাকার। লেনদেনে মোট অংশ নিয়েছে ২৮৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৮২টি কোম্পানির শেয়ারের। দর কমেছে ৮৬টি কোম্পানির শেয়ারের। আর দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির।

ডিএসইতে টাকার পরিমাণে শেয়ার লেনদেনের শীর্ষ দশ কোম্পানি হচ্ছে- মেঘনা পেট্রোলিয়াম, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, গ্রামীণফোন, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, পদ্মা অয়েল, স্কয়ারফার্মা, ইউনাইটেড কর্মাশিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, এবি ব্যাংক এবং ফ্যামিলি টেক্সটাইল।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সিএসই সার্বিক সূচক এবং সিএসসিএক্স সূচক বেড়েছে। তবে কমেছে সিএসই৩০ সূচক। সার্বিক সূচক ৫৮ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৪ হাজার ২৫৫ পয়েন্টে। এই দিন সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২১৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪০টির কমেছে ৬৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৪টির।

অর্থসূচক/এমআরবি/