ঢাবি ছাত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ

ঢাবি ছাত্রী

ঢাবি ছাত্রীপ্রেম ঘটিত কারণে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনাল এর এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৌলি নামের এক ছাত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউটের বিবিএ ২২তম ব্যাচের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

রোববার দুপুরে নির্যাতিত ওই শিক্ষার্থীর সহপাঠী ম্যামো হাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতিতে (ডুজা) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ প্রথম বর্ষের তামহীদ নামের এক শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বরের সামনে মৌলিকে মারধর করে। এতে তার চোখ মারাত্বকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বর্তমানে মৌলি রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে বলেও তিনি জানান।

নির্যাতিত ওই শিক্ষার্থীর সহপাঠী আরও বলেন, এ ঘটনার পর মৌলির পরিবারের পক্ষ থেকে শাহবাগ থানায় ওই ছাত্রের বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়। মামলায় আসামির পরিচয় এমনকি বাসার ঠিকানা দেওয়া সত্বেও পুলিশ তাকে ধরতে গড়িমসী করে বলে তিনি অভিযোগ করেন। পরবর্তীতে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয় আসামি বর্তমানে জামিনে রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে আসামির পরিবারের পক্ষ থেকে মৌলির পরিবারকে সমঝোতা করে নেওয়ার এবং মামলা তুলে নেওয়ার জন্য পরোক্ষভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে।  আসামির বাবা মেজর (অ.) ইলিয়াস হোসেন সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আসামির বাবা মেজর (অ.) ইলিয়াস হোসেন বলেন, ঘটনাটি আমি জানি। মেয়ের পক্ষ থেকে থানায় মামলা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ওই মেয়ে এবং তার পরিবার আমার ছেলেকে ভুলিয়ে ভালিয়ে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করার জন্য চাপ দিচ্ছে। আমার ছেলে তাদের উদ্দেশ্যে বুঝতে পেরে মেয়েটার সাথে সম্পর্ক ত্যাগ করলে মেয়ে ও তার পরিবার মিলে আমার ছেলে ও আমাকে নিয়ে নানা কটুক্তি করছে।

মেয়েটির চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, আমার ছেলের সাথে সম্পর্ক করার আগে ওই মেয়ের একাধিক সম্পর্ক ছিল।

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে নির্যাতিত ওই ছাত্রীর মা আয়েশা আক্তার, ছাত্রীর ভাই অনিকেত আক্তার মুনাক এবং তার সহপাঠীরা উপস্থিত ছিলেন।

এএইচ/সাকি