‘কারখানা দুর্ঘটনায় মধ্যম পর্যায়ের ব্যবস্থাপকদের অদক্ষতাই দায়ী’

  • শরিফ মাহমুদ
  • April 19, 2014
  • Comments Off on ‘কারখানা দুর্ঘটনায় মধ্যম পর্যায়ের ব্যবস্থাপকদের অদক্ষতাই দায়ী’

BGMEA_Newsমধ্যম পর্যায়ের ব্যবস্থাপকদের অদক্ষতার কারণে পোশাক কারখানায় বড় দুর্ঘটনা ঘটে বলে মন্তব্য করেছেন শ্রম সচিব মিকাইল শিপার। এই পর্যায়ের কর্মকর্তারা প্রশিক্ষণ পেয়ে শ্রমিকদের পরিচালনা করলে দুর্ঘটনা এড়ানোর পাশাপাশি উৎপাদন বাড়বে বলেও মনে করেন তিনি।

 শনিবার সকালে বিজিএমইএর নুরুল কাদের মিলানায়তনে অনুষ্ঠিত ‘বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬ ও শিল্প সম্পর্ক’ বিষয়ক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালার বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিজিএমইএ সভাপতি আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু্, কারখানা পরিদর্শন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মশিউর রহমান, শ্রম পরিচালক এসএম আশরাফুজ্জামান, বিজিএমইএ দ্বিতীয় সহ-সভাপতি এসএম মান্নান কচি, রিয়াজ বিন মাহমুদ প্রমুখ।

শ্রম সচিব মিকাইল শিপার বলেন, পোশাক কারখানার যে বড় ঘটনাগুলো ঘটছে তা মূলত ছোটো ছোটো সমস্যা থেকে সৃষ্টি হয়েছে। আর এই সব ঘটনার সৃষ্টি হয়েছে মূলত মধ্যম পর্যায়ের ব্যবস্থাপকদের অদক্ষতার কারণে।

এ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হলে কর্মক্ষেত্র উন্নতি হবে। তারা প্রশিক্ষিত হয়ে যদি শ্রমিকদের সঠিকভাবে পরিচালনা করে তবে উৎপাদনশীলতা বাড়বে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু্ বলেন, পোশাক শিল্পের মালিক ও শ্রমিকের মধ্যে সুসম্পর্কের অভাব আছে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দুই পক্ষের মাঝে এই দূরত্ব দূর করে সুসম্পর্ক তৈরি করতে পারলে কারখানার উৎপাদন বাড়বে।

বিজিএমইএ সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, প্রতিটি কারখানার চারজন মধ্যম পর্যায়ের ব্যবস্থাপককে ছয় ঘণ্টা প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। তাতে ৩ হাজার ২০০ পোশাক কারখানার ১৪ হাজার প্রশিক্ষণার্থীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এই ধরনের প্রশিক্ষণ মালিক-শ্রমিকদের মাঝে তৈরি হওয়া দূরত্ব কমাতে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করেন তিনি।