৩ মাস পর মধ্যপাড়া পাথর খনি থেকে উৎপাদন শুরু

pathor

pathorপ্রায় ৩ মাস উৎপাদন বন্ধ থাকার পর দিনাজপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে নতুন প্রযুক্তিতে রোববার থেকে পাথর উৎপাদন শুরু হচ্ছে।

নতুন চুক্তিবদ্ধ বেসরকারী কোস্পানী জিটিসি নতুন করে এই পাথর উৎপাদন কার্যক্রম শুরু করছে।

গত বছরের ২৫ নভেম্বর থেকে খনি শ্রমিক আন্দোলন এবং নতুন চুক্তির কারণে প্রায় ৩ মাস উৎপাদন বন্ধ ছিল।  মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লি. এর মহা -ব্যবস্থাপক অপারেশন মীর আ. হান্নান জানান, গত বছরের ২৬  নভেম্বর  থেকে জার্মানীয়া ট্রেস্ট কনসোটিয়াম’র (জিটিসি) সাথে খনির দায়িত্বভার গ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হয়। এর পর গত ২০ ফেব্রুয়ারি হস্তান্তর ও গ্রহণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। কোম্পানীটি চুক্তির শর্তানুযায়ী  গত ২৭ জানুয়ারি নতুন করে খনি শ্রমিক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করে । গত ১৮ ও ১৯ ফেব্রুয়ারি জিটিসি ১৮৯ জন খনি শ্রমিককে নিয়োগ দেয়। শনিবার উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু  করে। রোবাবার থেকে পাথর উৎপাদন হবে।

মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড গত ২৫/৫/২০০৭ ইং তারিখ থেকে প্রায় ৭ বছর ধরে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলতে চলতে যখন লোকসানী প্রতিষ্ঠানে খনিটি বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল তখন  গত ০২/০৯/২০১৩ ইং  তারিখে ১ হাজার ৪ শ কোটি টাকা ব্যায়ে খনির উৎপাদন ও ম্যানেজমেন্ট চুক্তি হয় জামার্নিয়া ট্রেস্ট কনসোটিয়াম এর সাথে । মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিটি উৎপাদনের শুরু থেকে এক শিফটে প্রতিদিন  প্রায় ১ হাজার থেকে ১ হাজার দুই শত মেট্রিক টন পাথর উৎপাদন করত। ফলে দেশে পাথরের ব্যাপক চাহিদা থাকলেও চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হত না। এতে করে কোম্পানীটি লাভের মুখ দেখতে পায়নি। লোকসানী এই প্রতিষ্ঠানটিকে লাভজনক করতে, আমদানী নির্ভরতা কমাতে এবং দেশে পাথরের চাহিদা পূরণ করতে সরকার খনির অপারেশন ম্যানেজমেন্ট, উন্নয়ন, উৎপাদন মেইনটেনেন্স এবং প্রভিশনি সার্ভিস চুক্তি করে জামার্নিয়া কোম্পানি লিমিটেড, ঢাকা, বাংলাদেশ এবং বেলারুশ সরকারের জেএসসি ট্রেস্ট কোম্পানির সাথে। তারা  নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে দেশী দক্ষ খনি শ্রমিক এবং বিদেশি দক্ষ জনবল দিয়ে খনিতে তিন শিফটে প্রতিদিন সাড়ে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার মেট্রিক টন পাথন উত্তোলন আশা করছেন বলে কোম্পানিটির উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

রোবাবর থেকে খনিতে পাথর উৎপাদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনির এমডি মঈনুদ্দিন আহমেদ।

সাকি/