দুদকের ডাকে সাড়া দেননি টিএন্ড ব্রাদার্সের কর্মকর্তারা

Halmark

Dudak+Halmarkআলোচিত হলমার্ক কেলেংকারীর সঙ্গে জড়িত টিএন্ড ব্রাদার্সের চেয়ারম্যানসহ তিন কর্মকর্তাকে ৩৫০ কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকলেও সাড়া দেয়নি কর্মকর্তারা।

সোমবার রাজধানীর সেগুন বাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সকাল ১০টা থেকে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও কোনো কারণ ছাড়াই তারা দুদকে উপস্থিত হননি বলে জানান কমিশনের উপ-পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলী।

তিনি বলেন, হলমার্ক কেলেংকারীর সাথে জড়িত ৫ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ফান্ডেড ৩৭২ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২৭টি মামলায় জড়িত ব্যাংক কর্মকর্তাসহ প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চিঠি দেয় কমিশন। এরই অংশ হিসেবে আজ টিএন্ড ব্রাদার্সের তিন কর্মকর্তাকে ডাকা হয়। কিন্তু তারা কোনো কারণ দর্শানো ছাড়াই কমিশনে উপস্থিত হয়নি। বাকি ৪টি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আজ যাদের ডাকা হয়েছিল তারা হলেন- টিএন্ড ব্রাদার্সের চেয়ারম্যান জিনাত ফাতেমা, ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাওহীদ হোসাইন এবং পরিচালক মো. তাসলিম হাসান।

৫ ডিসেম্বরের মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদে ডাকা বাকি চার প্রতিষ্ঠানের ১১ কর্মকর্তা হলেন -প্যারাগণ নিট কম্পোজিট লিমিটেডের পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম রাজা, নকশী নিট কম্পোজিট লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোছা. আমেনা বেগম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল মালেক, ডিএন স্পোর্টসের চেয়ারম্যান  মোতাহার উদ্দিন চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শফিকুর রহমান জন, পরিচালক ফাহমিদা আক্তার শিখা, খান জাহান আলী সোয়েটারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল জলিল শেখ, পরিচালক মো. তাজুর ইসলাম, মো. রফিকুল ইসলাম ও মীর মো. শওকত আলী।

এর আগে ২৮ নভেম্বর এ পাঁচ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাসহ বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের মোট ২৯ জন কর্মকর্তাকে তলব করে এ সংক্রান্ত নোটিশ প্রদান করা হয়। মামলার আসামি সোনালী ব্যাংকের ৯ কর্মকর্তাকে ৮ ডিসেম্বর এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের ৭ কর্মকর্তাকে সাক্ষী হিসেবে ৪ ডিসেম্বর বক্তব্য নেওয়ার জন্য তলব করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি সোনালী ব্যাংক হোটেল রূপসী বাংলা শাখা থেকে ফান্ডেড ৩৫০ কোটি ৩৭ লাখ ৮২ হাজার টাকা আত্মসাতের দায়ে ২৬ মামলা এবং পরবর্তীতে আরও একটিসহ প্র্রায় ৩৭২ কোটি অর্থ আত্মসাতের দায়ে ২৭ মামলা দায়ের করে দুদক।

হলমার্কসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ঋণ জালিয়াতির মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকের রূপসী বাংলা হোটেল শাখা থেকে ৩ হাজার ৬০৬ কোটি ৪৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ অনুসন্ধান ও তদন্ত করছে দুদক। যার মধ্যে গত ৭ অক্টোবর ফান্ডেড ১ হাজার ৫৬৮ কোটি ৩৪ হাজার ৮৭৭টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২৬ জনের বিরুদ্ধে ১১ মামলার চার্জশিট প্রদান করা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তারা হলেন কমিশনের উপ-পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলী, উপ-পরিচালক আক্তার হামিদ, সহকারী পরিচালক সেলিনা আক্তার মনি, সহকারী পরিচালক মশিউর রহমান, সহকারী পরিচালক নাজমুচ্ছায়াদায়াত, উপ-সহকারী পরিচালক মো. জয়নুল আবেদীন।